মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৪ নভেম্বর ২০১৬

মৎস্য বিষয়ক করণীয়

রাসায়নিক কীটনাশক পরিহার করে ধান ক্ষেতে সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে ধান ক্ষেতে আলোক ফাঁদ ও কঞ্চি স্থাপন করতে হবে। শতাংশ প্রতি কমন কার্প-১০টি ও নালোটিকা-১০টি মোট ২০টি পোনা মজুদ করা যেতে পারে।
মাছ চাষের ক্ষেত্রে আদর্শ পিএইচ মাত্রা কত?
৭.৫-৮.৫
পুকুরে পানির পিএইচ মান আদর্শ মাত্রার চেয়ে বেশী হলে কি করা উচিত?
প্রতি শতাংশে ২০০ গ্রাম ইউরিয়া প্রয়োগ করা উচিত
পুকুরে পানির পিএইচ মান আদর্শ মাত্রার চেয়ে কমে গেলে কি করা উচিত?
প্রতি শতাংশে ১৫০ গ্রাম চুন প্রয়োগ করা উচিত
কোন ধরণের মাটি মাছ চাষের জন্য সবচেয়ে ভাল?
দো-আঁশ মাটি
বর্ন্যা পরবতী সময়ে চাষির করণীয় কি হতে পারে?
পুকুর প্রস্তুতির সকল নিয়ম পালন পূর্বক পুকুরে পুণ: পোনা মজুদ করতে হবে।
গুণগতমানের খাদ্য বাজারে পাওয়া যায় না, এ ক্ষেত্রে কি করা যায়।
বর্তমানে বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলে চাষিগণ নিজেরাই বাড়িতে গুণগতমানসম্পন্ন পিলেট খাদ্য তৈরি করে থাকেন। প্রতিদিন ১টন খাদ্য তৈরি করতে পারে এমন পিলেট মেশিনের দাম ২০- ২৫ হাজার টাকার মত। খাদ্যের মিশ্রণ হিসেবে খৈল, কুড়া, ভূঁসি, মিনারেল ও চেওয়া শুটকির গুড়া ব্যবহার করা হয়ে থাকে। চেওয়া শুটকি চট্রগ্রাম থেকে কিনে আটার মেশিনে গুড়া করে নিতে হবে। এরপর পিলেট খাদ্য তৈরি করতে হবে। এইভাবে প্রস্তুতকৃত খাদ্য গুণগতমানসম্পন্ন হয়।
নবীন চাষির জন্য কোন কোন প্রজাতির মাছ ১ম বছরে চাষ করা লাভজনক।
একজন নতুন চাষির ক্ষেত্রে কার্প জাতীয় মাছের চাষ / তেলাপিয়ার একক চাষ করা অধিক যুক্তিযুক্ত। এতে লোকসানের সম্ভবনা নেই।
পুকুরে কি পরিমাণ খাদ্য প্রয়োগ করতে হবে তা কিভাবে জানা যায়।
নমুনা সংগ্রহের মাধ্যমে মাছের মজুদ নির্ণয় করে পুকুরের মাছের দেহের ওজনের ৩-১০% বিভিন্ন প্রজাতি ও মাছের আকারের উপর নির্ভর করে খাদ্য প্রদান করতে হবে।
মাছ ধরার ক্ষেত্রে কি কি বিষয় বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা উচিত?
আহরণের পর মাছ ও পাত্রটি পরিস্কার করে বরফ মিশ্রিত করে রাখতে হবে যাতে মাছের গুণগতমান নষ্ট না হয়, এরপর মাছের পাত্রটি ছায়াযুক্ত স্থানে রাখতে হবে, যত দ্রুত সম্ভব বাজারজাত করণের ব্যবস্থা নিতে হবে। যে সকল মাছ জীবিত অবস্থায় বাজারজাত করতে হয় সে সকল মাছ ধরার পূর্বে পানিপূর্ণ ড্রামসহ গাড়ী ও মাছ ধরার জন্য জেলে ঠিক রাখতে হবে যাতে দ্রুততম সময়ে বাজারজাত করা যায়।
নার্সারী পুকুরে ফাইটো-প্লাংটন না জু-প্লাংটন বেশি থাকা ভাল?
নার্সারী পুকুরে জু-প্লাংটন বেশি থাকা ভাল, কারণ সকল প্রজাতির মাছের পোনা ১১ সেন্টিমিটার পর্যন্ত শুধু জু-প্লাংটন খায়।
পানিতে জু-প্লাংটন বেশি হলে পানির রং কেমন হয়।
পানিতে জু-প্লাংটন বেশি হলে পানির রং বাদামী সবুজ হয়ে থাকে।
Mono Culture (একক চাষ) কি?
কোন পুকুরে একটি প্রজাতির মাছ চাষকে MonoCultureবলা হয়।
কিভাবে পুকুরের মাছের ওজন জানা যাবে?
পুকুরের যে পরিমাণ মাছ মজুদ করা হয়েছে (প্রত্যেক প্রজাতি হতে) তার কমপক্ষে ১০% মাছ বের জাল দ্ধারা ধরে ওজন করে প্রত্যেক প্রজাতির মাছের গড় ওজন নির্ণয় করতে হবে। মজুদকৃত মাছের ৯০% জীবিত ধরে প্রত্যেক প্রজাতির মাছের মোট সংখ্যার সাথে গড় ওজন গুণ করে মাছের প্রজাতি ভিত্তিক মাছের ওজন বের করতে হবে। এইভাবে প্রত্যেক প্রজাতির মাছের ওজন বের করে সকল প্রজাতির মাছের ওজন যোগ করে মাছের মোট ওজন নির্ণয় করা যায়।
সার দেয়ার পরও পানি সবুজ না হলে কি করা যায়।
উপজেলা মৎস্য দপ্তরে যোগাযোগের মাধ্যমে পানির হার্ডনেস পরীক্ষা করে ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। তবে নিয়মিত ভাবে মাছকে সম্পুরক খাদ্য প্রয়োগ করতে হবে।
পান